করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে চাঁদপুরে আইসোলেশন ভর্তি ১ : নমুনা সংগ্রহ করে নিল আইইডিসিআর

কবির হোসেন মিজি :
করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে এক তরুণ ( ১৬)কে ভর্তি করা হয়েছে। ২৭ মার্চ শুক্রবার বেলা ১২টায় তাকে ওই ওয়ার্ডে ভর্তি করানো হয়েছে। তার বাড়ি মানিকগঞ্জ। সে একজন হকার। পানি বিক্রি করতো।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার আসিবুল আহসান চৌধুরী জানান, জানুয়ারি মাসের ২০/২২ তারিখে বাবা মায়ের সাথে রাগ করে তরুণটি ঢাকায় চলে আসেন। সে এতদিন ঢাকা সদর ঘাটে পানি হাকারি করেছে।

সে ১৭ মার্চ থেকে জ্বর, সর্দি কাশি এবং শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে ভুগছিল। তার কাছে পরিবারের কারো মোবাইল নম্বর এবং কারো সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ না থাকায় কয়েক দিন অসুস্থতার কারণে সে মাথা ঘুরে পড়ে গেলে সদরঘাটের লোকজন তাকে লঞ্চের যাত্রী মনে করে চাঁদপুরগামী একটি লঞ্চে উঠিয়ে দেয়।

শুক্রবার বিকেলে সে চাঁদপুর লঞ্চঘাটে নামলে তার অসুস্থতা দেখে চাঁদপুরের একজন সংবাদকর্মীর সহায়তায় শুক্রবার বেলা ১২টায় চিকিৎসার জন্য চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। তিনি জানান, তরুণটির অসুস্থতার লক্ষণ দেখে করোনা ভাইরাস সন্দেহ হলে তিনি বিষয়টি তাৎক্ষণিক হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. হাবিব উল করিম, সহকারী পরিচালক মাহবুবুর রহমান এবং আরএমও ডা. সুজাউদৌল্লাহ রুবেলসহ একটি টিম গঠন করে আলোচনা করে সুমনের অসুস্থতান বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা (আইইডিসিআর) কেন্দ্রের কট্রোল রুম বিভাগের ডা. মোনালিসার সাথে আলাপ করেন। পরবর্তীতে একই বিভাগের দায়িত্বে থাকা ডা. পারভেজের সাথে বিস্তারিত আলাপ করলে তিনি তাকে ঢাকা না পাঠিয়ে হাসপাতালের প্রস্তুতকৃত আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি রাখার পরামর্শ দেন।

বিকেলের মধ্যেই আইসোলেশনে থাকা অসুস্থ তরুণের নমুনা সংগ্রহ করতে তারা আইইডিসিআর কেন্দ্রের কট্রোল রুম বিভাগের একটি টেকনোলজিস্ট টিম পাঠান। পরে বিকেলের মধ্যেই টেকনোলজিস্ট নিতাইসহ ওই টিমটি নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যায়। আর এই নমুনা পরীক্ষা শেষে জানা যাবে সুমন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কিনা।

বর্তমানে হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ওই রোগীর দেখাশুনার দায়িত্বে দু’জন নার্স রয়েছেন। এর চিকিৎসেবার দায়িত্বেও রয়েছেন ডা. আসিবুল আহসান চৌধুরী।

এ বিষয়ে অসুস্থ তরুণকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া নাজমুল হাসান বাঁধন জানায়, চাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী অ্যাড. জিল্লুর রহমান জুয়েলের সেবামূলক প্রতিষ্ঠান কিউআরসি’র জরুরী সেবা প্রদানের নম্বরে লঞ্চঘাটের লোকজন কল দিলে আমি সেখানে গিয়ে তাকে প্রথমে মাস্ক পড়িয়ে জিএনজি স্কুটারে করে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাই। তাকে মূলত কিউআরসি’র মাধ্যমে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করানো হয়।

শেয়ার করুন