চাঁদপুরে করোনায় মৃত বেড়ে ৩জন : আরো ৩৬জনের রিপোার্ট নেগেটিভ

রহিম বাদশা :
চাঁদপুরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ২ থেকে বেড়ে ৩জন হয়েছে। ফরিদগঞ্জের পূর্ব ধানুয়া গ্রামে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া আবুল বাশার ওরফে বাসু মিয়া (৭০) করোনায় আক্রান্ত ছিলেন বলে রোববার সকালে রিপোর্ট এসেছে। গত ২৭ এপ্রিল (সোমবার) তিনি নিজ বাড়িতে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যান। মারা যাওয়ার পর তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল।

এ ঘটনায় গতকাল ওই বৃদ্ধের বাড়িসহ আশপাশের কয়েকটি বাড়ি লকডাউন করেছে উপজেলা প্রশাসন। এছাড়া তার ক্লোজ কন্ট্রাক্টে যারা ছিলেন তাদের সবার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে করোনা টেস্টের জন্য।

উল্লেখ্য, গত সোমবার (২৭ এপ্রিল) ভোর রাতে আবুল বাসার জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্ট ও পাতলাপায়খানায় আক্রান্ত অবস্থায় মারা যান। করোনার সন্দেহভাজন রোগী হিসেবে ওইদিন দুপুরে তাকে বিশেষ ব্যবস্থায় দাফন করা হয়। তার বাড়ি ফরিদগঞ্জ উপজেলা ৯নং গোবিন্দপুর ইউনিয়নের পূর্ব ধানুয়ার মিজি বাড়ি।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, রোববার সকালে মৃত ওই বৃদ্ধসহ ৩৭জনের নমুনা টেস্টের রিপোর্ট এসেছে। বাকী ৩৬জনের রিপোর্ট করোনা নেগেটিভ এসেছে। তবে শুক্রবার ঢাকায় নমুনা দিয়ে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে আসা এক রোগীর রিপোর্ট শনিবার রাতে করোনা পজেটিভ এসেছে। চাঁদপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন থাকায় তিনিও এখন জেলার আক্রান্তদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। তার বাড়ি ফরিদগঞ্জে।

সিভিল সার্জন অফিসের হিসেব অনুযায়ী, মৃত ওই ব্যক্তি এবং ঢাকা থেকে আসা ফরিদগঞ্জের আক্রান্ত ব্যক্তিসহ চাঁদপুর জেলায় এখন করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৯জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৩জন। মৃত ৩জনের’ই করোনা শনাক্ত হয়েছে মারা যাওয়ার পরে সংগৃহীত নমুনা পরীক্ষায়। আক্রান্ত অন্য ১৬জনের মধ্যে ১০জন ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। অন্য ৬জনও সুস্থ হওয়ার পথে।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্র আরো জানায়, রোববার পর্যন্ত চাঁদপুর থেকে আইইডিসিআর পরীক্ষা কেন্দ্রে সর্বমোট নমুনা পাঠানো হয়েছে ৪৭৮জনের। মোট রিপোর্ট এসেছে ৪১৪জনের। রিপোর্ট অপেক্ষমান ৬৪জনের।

সূত্র আরো জানায়, করোনায় আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে চিকিৎসাধীন ৬জনের মধ্যে ২জন হাজীগঞ্জে নিজ নিজ বাসায়, ২জন সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে (এই দু’জন ফরিদগঞ্জের) এবং চাঁদপুর সদরের রামপুরের ১জন ও হাইমচরের ১জন নিজ বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এছাড়া ঢাকা, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় এবং বিভিন্ন দেশে চাঁদপুরের আরো অনেকে আক্রান্ত ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। তাদের হিসেব চাঁদপুর সিভিল সার্জন অফিসে নেই। চাঁদপুর স্বাস্থ্য বিভাগের মাধ্যমে যাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে কিংবা চাঁদপুরের স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আক্রান্ত যারা চিকিৎসা নিচ্ছেন শুধুমাত্র তাদের তথ্যের ভিত্তিতে চাঁদপুর জেলার করোনার পরিসংখ্যান জানাচ্ছে সিভিল সার্জন অফিস।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন