আসামী রাজু বাদী রাজুকে জিজ্ঞেস করেছিল ‘বাবাকে খুঁজে পেয়েছ?’

শরীফুল ইসলাম :
প্রতিদিন রাত ১২টার মধ্যে বাবা বাড়ি আসেন। ঘটনার দিন রাত দেড়টা বেজে গেলেও বাবা বাড়ি ফিরেনি। অন্যসব দিনে বাবাকে একবার ফোন করলেই ফোন রিসিভ করতেন বাবা কিন্তু সেদিন বার বার ফোন করলেও বাবা ফোন ধরেনি। বার বার কেটে দেওয়ার এক পর্যায় বন্ধ করে দেয় ফোন।

চাঁদপুর শহরের বিপণীবাগ বাজারে ব্যবসায়ী নারায়ন ঘোষ হত্যা ঘটনা পরবর্তীতে শনিবার রাতে চাঁদপুর শহরের ঘোষপাড়া এলাকায় নারায়ন ঘোষের নিজ বাড়িতে এসব কথার বর্ণনা দিচ্ছিলেন তার ছেলে রাজিব ঘোষ রাজু।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে রাজিব ঘোষ রাজু বলেন, আমার বাবা খুব সহজ-সরল মানুষ ছিলেন। আমাদের জানা মতে কারো সাথে আর্থিক কোন সমস্যা ছিল না। ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে বাবা বাড়ি না আসায় আমি বাবার খোঁজে বিপণীবাগ বাজরে যাই। তখন রাত আনুমানিক দেড়টা বাজে। তখন টিপটপ সেলুনের কর্মচারী রাজু শিলকে দেখি পানি দিয়ে দোকান ধোয়া-মোছা করছে। তখনও কিছু বুজতে পারিনি। তাকে জিজ্ঞেস করলাম বাবা এসেছিলেন কিনা। তখন রাজু শিল বললো এসেছিল, আমি চুল দাঁড়ি কাটার পর চলে গেছে। তখন কোন কিছু না বুজে খুঁজতে থাকি।

রাজু আরো বলেন, সেখান থেকে চলে আসার আগেও জিজ্ঞেস করলো বাবাকে পেয়েছি কিনা। বাবাকে খুঁজতে চাঁদপুর লঞ্চঘাটে যাই, সেখানেও পাইনি। লঞ্চঘাট থেকে বাড়ি ফিরার পথে ভোর সাড়ে ৫টায় মামলার একমাত্র আসামী সেলুন কর্মচারী রাজু শিলের সাথে আবারও কালীবাড়ি এলাকায় দেখা। সে আমাকে ঠান্ডা মেজাজে জিজ্ঞেস করে ‘বাবাকে খুঁজে পেয়েছ?’। সে অটোরিকশার অপেক্ষা করছিল তখন। তখনই সে কোথাও পালিয়ে যাচ্ছিল।

রাজিব ঘোষ রাজু আরও বলেন, আমার বাবার শরীরের গলাসহ দুই পায়ে ও পেটে ক্ষতচিহ্ন রয়েছে। দুই পা ও পেটের আঘাত দেখে মনে হয় কেচি দিয়ে আঘাট করেছে। আর গলায় খুর দিয়ে কাটতে পারে। এত বড় ঘটনা একার পক্ষে সম্ভব নয়। রাজুর সাথে একাধিক লোক থাকতে পারে। আমরা বাবার খুনিকে দ্রæত গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

এদিকে হত্যাকান্ড ঘটনায় ওইদিন (১৬ সেপ্টেম্বর) রাতে চাঁদপুর সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার একমাত্র আসামী সন্দেহভাজন সেলুন কর্মচারী রাজুকে প্রধান আসামী করে মামলা করেন নারায়ন ঘোষের ছেলে রাজিব ঘোষ রাজু। খুন হওয়া মাঠা ব্যবসায়ী চাঁদপুর শহরের ঘোষপাড়া মৃত যোগল কৃষ্ণ ঘোষের ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে দধি, মাঠার ব্যবসা করে আসছিলেন। নারায়ন ঘোষের এক মেয়ে ও দুই ছেলে রয়েছে।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাতের কোনো এক সময়ে এই হত্যাকান্ড ঘটে। বৃহস্পতিবার সকালে বাজারের পাবলিক টয়লেটের পাশে তার বস্তাবন্দি গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়। বাজারের নাইটগার্ড ইসমাইল বকাউলের তথ্যের ভিত্তিতে ধারণা করা হচ্ছে, টিপটপ সেলুনের কর্মচারী রাজু এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত সেলুন কর্মচারী পলাতক রয়েছে। তাকে আটকে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী বিপণীবাগ বাজারের মার্কেটের নাইট গার্ড মো. ইসমাইল বকাউল বলেন, বিপনিবাগ বাজারের টিপটপ সেলুনের কর্মচারী রাজু শিল (২৭) রাত দুইটার সময় সাটার খোলে পানি দিয়ে পরিস্কার করতে দেখি। পরে রাতে এক এক সময় একটি সাদাবস্তা নিয়ে টানে হেঁচড়ে বাইরে নিয়ে যেতে দেখি। এত রাতে কি করা হচ্ছে এমন প্রশ্ন করলে সে বলে, দোকান পরিস্কার করেছি। ময়লাগুলো বস্তায় করে ফেলে দিয়ে আসছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিপণীবাগ বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, নারায়ন ঘোষ দধি-মাঠার ব্যবসা করতেন। আর রাজু ঘোষ এখানকার মানুষের সাথে তেমন মিশতো না। চুপচাপ দোকানে বসে সময় কাটাতো। নারায়ন ঘোষ রাতে ব্যবসার টাকা কালেকশন করতেন। তার কাছ থেকে অনেকে টাকা ধার নেন। হয়তো রাজু শিল তার কাছ থেকে কোন টাকা ধার নিয়েছে। ধারের টাকাকে কেন্দ্র করেই হয়তো হত্যাকান্ডের মত ঘটনা ঘটেছে।

রাজু শিলের স্ত্রী শিউলি বলেন, আমার স্বামী ওইদিন সকালে ফোন করে কেমন আছি জানতে চেয়েছিল। আমাকে অনুরোধ করে বলতে বললো, আমি যেন সেলুনের মালিক কৃষ্ণাকে বলি রাতে সেলুন পরিষ্কার করে চলে এসেছি। তারপর আমাকে ভালো থেকো বলে ফোন বন্ধ করে দেয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক এনামুল হক চৌধুরী বলেন, মামলার প্রধান আসামী রাজু শিলকে আটকের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। হত্যাকন্ডে রাজু ছাড়া অন্য কেউ সম্পৃক্ত আছে কিনা এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি। টাকার বিষয় নিয়ে হত্যা, এমন কথার ভিত্তি নেই। তদন্তের স্বার্থে অনেক কিছুই বলা যাচ্ছে না।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহীউদ্দীন বলেন, ঘটনার পর থেকে মামলার একমাত্র আসামী সেলুন কর্মচারী রাজু পলাতক রয়েছে। তাকে আটক করতে পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।