চাঁদপুরে আড়াই হাজার গ্রাহক দিনের বেলা গ্যাস পান না!

সুজন পোদ্দার :
চাঁদপুরের কচুয়া পৌরসভার আড়াই হাজার গ্রাহক প্রায় ৫ বছর ধরে দিনের বেলা গ্যাস পাচ্ছেন না। সন্ধ্যায়ও মিলে না। রাত ১১টার পর থেকে ভোর ৩/৪টা পর্যন্ত অল্প চাপের কিছু গ্যাস পাওয়া যায়। তাতে ঠিক মতো রান্না করা দুরুহ হয়ে পড়ে। তবুও মাসের পর মাস, বছরের পর বছর গ্রাহকদের নিয়মিত গ্যাস বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে। বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানীর এমন তুঘলকি কান্ডে অসহায় এসব গ্রাহক। বার বার বলেও কোনো লাভ হয়নি গ্রাহকদের।

প্রয়োজনে গ্যাস না পেলেও গ্রাহকরা নিয়মিত বিল দিয়ে যাচ্ছে বাখরাবাদকে। বাড়িতে গ্যাসের সংযোগ আছে কিন্তু লাকড়ি দিয়ে মাটির চুলায় বা সিলিন্ডার গ্যাসে রান্না করছেন কচুয়া পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। প্রায় পাঁচ বছরের অধিক সময় ধরে পৌর এলাকার কোয়া, কোয়া চাঁদপুর, বালিয়াতলী, কড়ইয়া, মাসিমপুর, করইশ, লক্ষ্মীপুরের আশপাশের আড়াই হাজার পরিবারের এই ভোগান্তি চলছে।

মঙ্গলবার পৌর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় প্রতিটি বাড়িতে বাখরাবাদের গ্যাসের সংযোগ আছে। কিন্তু লাইনে গ্যাস সরবরাহ নেই। রান্নার কাজ চলছে মাটির চুলা অথবা সিলিন্ডার গ্যাসে।

ভুক্তভোগী শিক্ষক পূজা পোদ্দার বলেন, দীর্ঘ পাঁচ বছরের অধিক সময় ধরে নিয়মিত গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে না। রাত ১১টার সময় গ্যাস আসে আবার ভোর ৫টার সময় গ্যাস চলে যায়। তাই প্রতিদিন ভোরে উঠে সকালের নাস্তা ও রান্না বান্নার কাজ শেষ করি। প্রতিদিন ভোরে উঠতে উঠতে অসুস্থ হয়ে পড়েছি। তাই বাধ্য হয়ে মাটির চুলা ও সিলিন্ডার ব্যবহার করতে হচ্ছে। এরপরও সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়ার ভয়ে নিয়মিত বিল পরিশোধ করে যাচ্ছি।

আরেক ভুক্তভোগী শামীমা মজুমদার মৌসুমী বলেন, নিয়মিত বিল দিচ্ছি কিন্তু গ্যাস পাচ্ছি না। এভাবে আমাদের আর কত গচ্চা দিতে হবে জানতে চাইলে বাখরাবাদ কর্তৃপক্ষ কোনো জবাব দেয় না।

গ্যাসের সরবরাহ চালু না করা পর্যন্ত বিল আদায় বন্ধ রাখার দাবি জানিয়েছেন ওই এলাকার ভুক্তভোগীরা। গৃহিনী শামীমা মজুমদার মৌসুমী বলেন, গ্যাস না দিয়ে বিল নেবে এটা অন্যায়। এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আমাদের আইনি লড়াইয়ে নামা দরকার।

পৌর মেয়র নাজমুল আলম স্বপন বলেন, তার বাড়িতেও গ্যাসের সরবরাহ নেই। রাত ১১টার সময় গ্যাস আসে আবার ভোর ৪/৫টার সময় গ্যাস চলে যায়। অল্প যে পরিমাণ গ্যাসের সরবরাহ থাকে তাতে রান্না করা যায় না। রান্নার জন্য তাদের সিলিন্ডার গ্যাস ব্যবহার করতে হয়। বাখরাবাদের কর্তৃপক্ষকে অনেকবার বলার পর ও তাঁরা নিয়মিত গ্যাস সরবরাহের ব্যবস্থা নেয়নি।

এ ব্যাপারে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির লিমিটেড গৌরিপুরের ব্যবস্থাপক অলিউল্লাহ ব্যবহৃত মোবাইল ফোন (০১৭৭০৭৯১৪৩১) নম্বরে জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিবেদকের সাথে কথা বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন