চাঁদপুরে জেলেদের নৌকা ছাড়াতে এসে ইউপি মেম্বার আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক
চাঁদপুরের পদ্মা মেঘনা নদীতে মা ইলিশ রক্ষায় চলছে অভয়াশ্রম। দিন রাত সমান তালে মা ইলিশ রক্ষায় অভিযান পরিচালনা করছেন প্রশাসন। এতো অভিযানের পর কোনোভাবেই থামছেনা মা ইলিশ নিধন। প্রতিদিন সমানতালে আটক হচ্ছেন জেলে জব্দ হচ্ছে মাছ, নৌকা ও জাল।

চাঁদপুরে নৌ-থানায় জেলেদের নৌকা ছাড়াতে এসে তরপুরচন্ডি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য রুহুল আমিন সিকদার (৪০) আটক হয়েছে। কিন্তু আটক হওয়ার ১০ ঘণ্টা পর অজ্ঞাত কারণে ওই ইউপি সদস্যকে ছেড়ে দেয় নৌ- পুলিশ।

চাঁদপুর নৌ-পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকাল থেকেই চাঁদপুর নৌ-থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ কবির হোসেনের নেতৃত্বে নৌ-পুলিশের একটি দল সদর উপজেলার তরপুরচন্ডী ইউনিয়নের আনন্দ বাজার এলাকায় অভিযান চালায়।

এ সময় কয়েকটি জেলে নৌকা আটক করা হয়। এর মধ্যে একটি নৌকা তরপুরচন্ডী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার রুহুল আমিন সিকদারের ছিল। তিনি বেলা ১২টায় নৌ-থানায় এসে তার নৌকাটি ছেড়ে দিতে বলেন। তিনি নৌ-থানায় আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টাও করেন। এ সময় নৌ-থানার ইনচার্জ কবির হোসেন তাকে আটক করেন।

এদিকে আটক হওয়ার ১০ ঘন্টা পর অজ্ঞাত কারণে রাতে মুচলেখা রেখে একজন পৌর জনপ্রতিনিধিে জিম্মায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় তরপুরচন্ডি এলাকায় আলোচনার ঝড় বইছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, চাঁদপুর সদর উপজেলার তরপুরচন্ডী ইউনিয়নের আনন্দ বাজার এলাকায় মা ইলিশ রক্ষা অভিযানের শুরু থেকেই ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার রুহুল আমিন সিকদারের নেতৃত্বে একদল জেলে মা ইলিশ নিধন করে আসছে।

প্রতিদিন ওই এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আড়ত বসিয়ে তার নেতৃত্বে চলে মাছ বেচাকেনা। এ ধরনের অপকর্মকারী ব্যক্তি কিভাবে নৌ-থানায় গিয়ে আধিপত্য বিস্তার করে আটক হওয়ার পর আবার ছাড়া পেয়ে যায়। এ নিয়ে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।