চাঁদপুরে ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা ৫ম শ্রেণির ছাত্রী : জোরপূর্বক অকাল গর্ভপাত

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর সদর উপজেলার তরপুরচন্ডি ইউনিয়নে জাহাঙ্গীর দর্জি (৪০) কর্তৃক ৫ম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী (১৩)কে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা শিশুটির পরিবারকে ভয়ভীতি দেখিয়ে তার অবৈধ গর্ভপাত করা হয়েছে।

শুধু ধর্ষণই নয়, বর্তমানে ওই পরিবারটিকে আইনের আশ্রয় না নিতে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটে তরপুরচন্ডি ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের আনন্দবাজার এলাকার বেপারী বাড়িতে। কিশোরী স্থানীয় আব্দুল আওয়াল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ছাত্রী।

এদিকে এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্থানীয় একটি দালাল চক্র উঠেপড়ে লেগেছে। চক্রটি কিশোরীর পরিবারকে প্রথমে ক্ষতিপূরণ দেবার কথা বলে আইনের আশ্রয় নেয়া থেকে বিরত রাখে। এই সুযোগে গত ১ সপ্তাহ আগে শহরের একটি হাসপাতালে এনে কিশোরীকে জোরপূর্বক গর্ভপাত করায়। আর এরপর থেকেই তারা স্বর পাল্টে শিশুর পরিবারকে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

শিশুটির মা বলেন, আমার শিশু মেয়েটিকে প্রলোভন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে জাহাঙ্গীর দর্জি বহুবার ধর্ষণ করে। পরে তার শারীরিক পরিবর্তন দেখে জিজ্ঞেস করলে সে বিষয়টি স্বীকার করে। পরে লম্পট জাহাঙ্গীরেরর স্ত্রী এসে আমার মেয়েকে চাঁদপুরে নিয়ে গর্ভপাত করায়।

তিনি বলেন, আমি বিষয়টি ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার রুহুল আমিন সুকদার, ৯নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও আব্দুল আওয়াল সপ্রাবির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোস্তফা মাল, হাসান দেওয়ানসহ স্থানীয়দের জানিয়েছি। আমরা অসহায় বলে বিচার পাচ্ছি না। আমরা যাতে মামলা না করি, তার জন্যে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমি এই লম্পটের বিচার চাই।

ধর্ষণের শিকার শিশুটি জানায়, সে বাড়ির পাশে খেলতে গেলে জহাঙ্গীর দর্জী তাকে টাকার লোভ দেখিয়ে নির্জন স্থানে নিয়ে যায় এবং আমার মুখ চেপে খারাপ কাজ করে। এরপর সে আমাকে ভয় দেখিয়ে আরো কয়েকবার এই কাজ করেছে। আমি যাতে কাউকে না বলি এ জন্যে ভয় দেখিয়েছে।

এ বিষয়ে ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার রুহুল আমিন সিকদার ও ৯নং ওয়ার্ডের মোস্তফা মাল বলেন, আমরা বিষয়টি জেনেছি। কিশোরীর পরিবার যাতে ন্যায় বিচার পায় তার জন্যে আইনের আশ্রয় নিতে বলেছি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন