চাঁদপুর একদিনে পৃথক স্থানে ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত ২ ব্যক্তির মৃত্যু

কবির হোসেন মিজি :
চাঁদপুর শহরের মিশন রোড ও হাজীগঞ্জ উপজেলার সাতবাড়িয়া নামক স্থানে ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত ২ ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টায় চাঁদপুর-লাকসাম রেলপথের চাঁদপুর শহরের মিশন রোডের পূর্ব দিকে খান বাড়ির সামনে এবং হাজীগঞ্জের সাতবাড়িয়া নামক স্থানে পৃথক দু’টি দুর্ঘটনা ঘটে। ট্রেনে কাটা পড়া নিহত এই দুই ব্যক্তির কোন নাম-পরিচয় জানা যায়নি। তাদের একজনের বয়স আনুমানিক ৫৫ বছর এবং অপরজনের বয়স আনুমানিক ৩২ বছর।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর মেঘনা এক্সপ্রেস ট্রেনটি চাঁদপুর বড়স্টেশনে যাওয়ার পরপরই মিশন রোডের পূর্বদিকে খান বাড়ির সামনে রেললাইনের পাশে এক অজ্ঞাত বৃদ্ধের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। ট্রেনের আঘাতে তার মাথার মগজ বের হয়ে রক্তাক্ত জখম হয়ে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন।

স্থানীয়রা বিষয়টি চাঁদপুর ফায়ার সার্ভিসকে জানালে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি প্যাকেটজাত করে চাঁদপুর রেলওয়ে থানা পুলিশকে অবগত করেন। খবর পেয়ে চাঁদপুর রেলওয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে পিএম রিপোর্টের জন্য লাশ মর্গে পাঠান।

চাঁদপুর নতুনবাজার ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার জাকির হোসেন জানান, মেঘনা এক্সপ্রেস ট্রেনের আঘাতে অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যুর বিষয়টি স্থানীয় লোকজন আমাদেরকে জানিয়েছে। আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি প্যাকেট করে চাঁদপুর রেলওয়ে থানা পুলিশকে অবগত করেছি।

অপরদিকে একই দিন বেলা সাড়ে ১২টায় চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার সাতবাড়িয়া নামক স্থানে সাগরিকা ট্রেনের নিচে ৩২ বছর বয়সী এক অজ্ঞাত ব্যক্তি নিহত হয়েছে বলে রেলওয়ে থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়। ওই ব্যক্তিরও কোন নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। ওই ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন রেলওয়ে থানা পুলিশ। মামলা নং ৬/২১।

এ বিষয়ে চাঁদপুর রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মুরাদ উল্ল্যাহ বাহার জানান, মেঘনা এক্সপ্রেস ট্রেনের আঘাতে এই অজ্ঞাত বৃদ্ধের মৃত্যুর খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল করে পিএম রির্পোটের জন্য মর্গে পাঠানো হবে। তবে তারা দু’জনই অজ্ঞাত। তাদের কোন নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। আমরা পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা করবো এবং পরিচয় শনাক্ত হলেই তাদের পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করবো।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।