চাঁদপুর-ফরিদগঞ্জ সড়কে এক মাসে ঝরে গেল ৭ প্রাণ : দুই মাসে ১১জন

কবির হোসেন মিজি :
চাঁদপুর-ফরিদগঞ্জ-রায়পুর সড়কের বিভিন্ন স্থানে এক মাসে তিনটি পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরে পড়লো ৭ তাজা প্রাণ। এতে গুরুতর আহত হয়েছেন অনেকে। সারাদেশের সাথে চাঁদপুরেও বিভিন্ন স্থানে একের পর এক ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটার পরও সতর্ক হচ্ছেন না অধিকাংশ যানবাহন চালক। তাই অসচেতনতা এবং অসাবধানতায় দিন দিন সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

চাঁদপুরে বিভিন্ন সময়ে একের পর এক সড়ক দুর্ঘটনায় অনেক আহত এবং নিহত হওয়ার পরেও বিভিন্ন যানবাহন চালকরা তাদের মর্জি, আনাড়ী এবং খামখেয়ালীভাবে যানবাহন চালিয়ে থাকেন। চাঁদপুরে অহরহ ছোট-বড় সড়ক দুর্ঘটনাকে অনভিজ্ঞ চালক, অসতর্কতা ও অসাবধানতাকে দায়ী করছেন সচেতন মহল। আর চালকদের এমন অসাবধানতার কারণে চাঁদপুর-ফরিদগঞ্জ-রায়পুর সড়কে অল্প ক’দিনের ব্যবধানে পৃথক তিনটি সড়ক দুর্ঘটনায় অকালে ৭টি তাজা প্রাণ ঝরে গেল।

এর মধ্যে গত ২৯ নভেম্বর বিকেলে বিয়ে বাড়ি থেকে দাওয়াত খেয়ে ফেরার পথে চাঁদপুর-ফরিদগঞ্জ সড়কের ধানুয়া বাহেরবন্দ মোড়ে শাহ সিমেন্টের কর্ভাডভ্যান এবং সিএনজি স্কুটারের মুখোমুখি সংঘর্ষে মোরশেদ পাটোয়ারী (৩০) নামের এক সিএনজি স্কুটারচালক নিহত হয়। এতে রুনু বেগম (৩৫), মালেক (৪০) ও মেহেদী (৭) নামের ৩জন যাত্রী গুরুতর আহত হলে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

এমন ভয়াবহ দুর্ঘটনার দু’দিন না পেরুতেই গত ১ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সকালে ফরিদগঞ্জ-রায়পুর সড়কের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে তেলবাহী লড়ির চাকা ফেঁটে বিপরীত দিক থেকে আসা সিএনজি স্কুটারের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে হয়। এতে সিএনজি স্কুটারচালক জাহাঙ্গীর (৪০), যাত্রী রুমা বেগম (৩০) ও মামুন (৩৫) নামের ৩জন নিহত হয়।

এছাড়া গত ২ নভেম্বর বিকেলে একই সড়কের ফরিদগঞ্জ উপজেলার কাছিয়াড়া পাঠান বাড়ির সামনে সিএনজি ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়। নিহতরা হলেন- ফরিদগঞ্জ উপজেলার গাব্দেরগাঁও গ্রামের জাহিদ হোসেন (১৭) ও আল-আমিন (১৮), গোয়াল ভাওর গ্রামের হারুনের ছেলে রায়হান (১৭)। এ সময় পালিয়ে যাওয়ার সময় ঘটনার স্থান থেকে সিএনজি চালক মনির হোসেন গাজীকে স্থানীয়দের সহায়তায় আটক করে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ।
হিসেব করে দেখা গেছে, মাত্র অল্প ক’দিনের ব্যবধানে একই সড়কে পৃথক স্থানে তিনটি সড়ক দুর্ঘটনায় সর্বমোট ৭জন ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এছাড়া খবর নিয়ে জানা গেছে, এই এক মাসে তিনটি দুর্ঘটনার ৭জন ব্যক্তিসহ গত দুই মাসে একই সড়কের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় সর্বমোট ১১জন চালক ও যাত্রী মৃত্যুবরণ করেছেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন