জনগণের অংশগ্রহণই প্রমাণ করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত : রনি চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর-২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও সাবেক মন্ত্রী মায়া চৌধুরীর ছোট পুত্র, এফবিসিসিআই’র সহ-সভাপতি এবং আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য রাশেদুল হোসেন চৌধুরী রনি বলেছেন, এ দেশের জনগণ অধীর আগ্রহ নিয়ে আগামী ৭ জানুয়ারির জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন। তারা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নৌকাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করার জন্য প্রস্তুত। তাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণই প্রমাণ করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত। গণসংযোগ, প্রচারণা, পথসভা ও উঠান বৈঠক যেখানেই নৌকা, সেখানেই উৎসবের আমেজে জনতার উচ্ছ্বাস।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ হয়, তাহলে জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত নৌকা প্রতীকের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। তাই নৌকার বিজয়কে সুনিশ্চিত করার জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে একযোগে কাজ করতে হবে। নির্বাচন নিয়ে মানুষের উচ্ছ্বাস দেখেই বোঝা যায়, জনগণ উন্নয়নের পক্ষে রায় দেয়ার জন্য প্রস্তুত। নৌকার পক্ষে যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে, তা কোনো ষড়যন্ত্রকারী ঠেকাতে পারবে না।

শুক্রবার বিকেলে মতলব উত্তর ছেংগারচর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড কলাকান্দা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে চাঁদপুর-২ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রমের পক্ষে পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত নৌকা প্রতীকের উঠান বৈঠকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রাশেদুল হোসেন রনি চৌধুরী বলেন, আমার বাবা এই মতলবের উন্নয়নের রুপকার। তিনি রাজনৈতিক জীবনে আমাদের পরিবারের চাইতে সবচেয়ে বেশি সময় দিয়েছে মতলবের মানুষকে। তিনি মতলবের মানুষের কল্যানে ও এলাকার উন্নয়নের কথা সব সময় চিন্তা করতেন। আমাদেরকে বাবা মতলবের মানুষের সেবা দেওয়ার জন্য তৈরি করেছেন। আমার বড় এই মতলবের মানুষের কল্যানে কাজ করে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।

তিনি বলেন, আজ নির্বাচনে আমার ভাই সাজেদুল হোসেন দিপ চৌধুরী থাকার কথা। তার বড় স্বপ্ন ছিলো আমার বাবা এই মতলবে এমপি হয়ে এই মতলবকে একটি স্মার্ট উন্নত মতলব গড়ে তোলার জন্য। আপনারা আমার ভাই দিপু চৌধুরীর জন্য দোয়া করবেন। তিনি জান্নাতবাসী যেন হোন। তার স্বপ্ন পূরণে আগামী ৭ জানুয়ারি সকলে উন্নয়নের স্বার্থে নৌকা প্রতীকে ভোট দিবেন। তাহলে আমার ভাইয়ের আত্মা শান্তি পাবে।

রাশেদুল হোসেন রনি চৌধুরী বলেন, নৌকা বঙ্গবন্ধুর প্রতীক, নৌকা স্বাধীনতার প্রতীক, নৌকা উন্নয়নের প্রতীক, নৌকা জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতীক। নৌকায় ভোট দিলেই পদ্মা সেতু হয়, মেট্রোরেল হয়, বড় বড় মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়। মোট কথা নৌকা মানেই জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন। তাই জনগণ আবারও নৌকাকেই ক্ষমতায় দেখতে চায়। এজন্য আগামী ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করতে হবে।

মতলব উত্তর ছেংগারচর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড কলাকান্দা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে পৌর আওয়ামী লীগের ৩ নাম্বার ওয়ার্ড শাখার সভাপতি রুহুল আমিন প্রধানের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন শিল্পপতি ও সমাজসেবক মোঃ শাহাজাহান সিকদার, ছেংগারচর পৌরসভার মেয়র লায়ন আরিফ উল্ল্যাহ সরকার, ছেংগারচর পৌর সভার সাবেক মেয়র আলহাজ্ব রফিকুল আলম জজ, ছেংগারচর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজ্বী মনির হোসেন বেপারী, ছেংগারচর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান ঢালী, ছেংগারচর পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাকির খান, ছেংগারচর পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র আলহাজ্ব রুহুল আমিন মোল্লা, ছেংগারচর পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রিপন, ঝিনাইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব নাসির উদ্দিন মিয়া, অ্যাডভোকেট সেলিম মিয়া, ছেংগারচর পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর সালমা বেগম, ছেংগারচর পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিল জাহাঙ্গীর আলম, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ বাবুল হোসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হান্নান সরকার, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতা মনির হোসেন ভূইয়া, ছেংগারচর পৌরসভার ৩ নাম্বার ওয়ার্ডের সাবেক কমিশনার জহিরুল ইসলাম প্রমুখ।

শেয়ার করুন