ড্রামের ভেতর লাশ : পারিবারিক কলহের জেরে খুন হন ছিদ্দিকুর রহমান

নিজস্ব প্রতিনিধি :
শাহরাস্তিতে চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে উপজেলার উয়ারুক রেলস্টেশনের রাজাপুরা এলাকায় পড়ে থাকা ড্রামের ভিতর থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করে শাহরস্তি থানা পুলিশ। ঘটনার দিন রাতেই খুন হওয়া ব্যক্তির সন্ধান পাওয়া যায়।

ঘটনার সময় উপস্থিত থাকা সংবাদকর্মী ও স্থানীয় জনগণ উক্ত ঘটনাটি ফেসবুকে ছড়িয়ে দিলে খুন হওয়া ব্যক্তির স্বজনেরা তাকে শনাক্ত করতে শাহরাস্তি থানায় আসেন। মো. ইব্রাহীম খলিল মৃতদেহ দেখে তাকে শনাক্ত করতে সক্ষম হন। মৃতদেহটি কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার কাজীপাড়া মসজিদ বাড়ির মৃত আমির হোসেনের ছেলে ছিদ্দিকুর রহমানের।

ছিদ্দিকুর রহমানের খালতো ভাই মো. ইব্রাহীম খলিল জানান, ৯ নভেম্বর বিকেলে তার খালতো ভাই ছিদ্দিক তার ব্যবহত মোটরসাইকেল নিয়ে বারপাড়া তার মামার বাড়ির উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেনি।

তাকে না পেয়ে তার মা বাদী হয়ে ১০ নভেম্বর সদর দক্ষিণ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। ওইদিন রাত দেড়টায় তারা ফেসবুকে শাহরাস্তিতে অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধারের সংবাদ দেখে এবং উদ্ধার হওয়া ব্যক্তির পোশাক দেখে ছিদ্দিককে শনাক্ত করতে শাহরাস্তি থানায় চলে আসেন।

মামলার বাদী শাহরাস্তি থানার সাব-ইন্সপেক্টর আব্দুল আউয়াল জানান, পারিবারিক কলহের জেরে খুন হন ছিদ্দিকুর রহমান। প্রায় ৫ বছর পূর্বে বিয়ে করেন ছিদ্দিকুর রহমান। তাদের সংসারে একটি শিশু সন্তান রয়েছে। এক বছর পূর্বে ছিদ্দিক তার স্ত্রীকে তালাক দেয়। এর কিছু দিন পর ছিদ্দিক আবার তার স্ত্রীর সাথে বসবাস করতে থাকে। এতে এলাকার লোকজন আপত্তি করে।

এক মাস পূর্বে ছিদ্দিক আবার দ্বিতীয় বিবাহ করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তার প্রথম স্ত্রী তাকে হত্যা করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছে শাহরাস্তি থানা পুলিশ।

অপরাধীদের আটক করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে ওসি মো. শাহ আলম জানান। এদিকে ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ ছিদ্দিকের লাশ তার মা লুৎফর নাহারের কাছে হস্তান্তর করেছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন