দাদা কর্তৃক শিশু ধর্ষণের চেষ্টা : দাদী আটক, দাদা পলাতক

কবির হোসেন মিজি :
ফরিদগঞ্জ উপজেলায় দাদা কর্তৃক ৪ বছরের শিশু নাতনীকে ধর্ষণের চেষ্টার মামলায় দাদী রোকেয়া বেগম (৫৯)কে আটক করেছে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ।

মামলার ১নং আসামি দাদা মো. নুরু মিয়া গাজী ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে। গত ৩১ অক্টোবর রাতে মামলার ২নং আসামি রোকেয়া বেগমকে আটক করেন ফরিদগঞ্জ থানার এসআই নাসির আহমেদ। পরে রোববার দুপুরে তাকে চাঁদপুর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ, ফরিদগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম চাঁদপুর সাকিনস্থ গ্রামের গাজী বাড়িতে মৃত মো. ইসমাইল গাজীর ছেলে মো. নূরু মিয়া গাজী (৭৭) তার ছেলের ঘরের ৪ বছরের শিশু নাতনিকে ঘরে একা পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এতে তাকে সহযোগিতা করেন তার স্ত্রী রোকেয়া বেগম।

তারই প্রেক্ষিতে গত ১ নভেম্বর ওই শিশুর মা বাদী হয়ে মোহাম্মদ নূরু মিয়া গাজীকে ১নং ও তার স্ত্রী রোকেয়া বেগমকে ২নং আসামী করে ফরিদগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১, তারিখ ১ নভেম্বর।

ফরিদগঞ্জ থানার এসআই নাসির আহমেদ জানান, গত ২৮ অক্টোবর দিন দুপুরে নুরু মিয়া গাজী তার চার বছরের নাতনিকে ধর্ষণ করার চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ এনে ওই শিশুর মা ফরিদগঞ্জে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

তারই প্রেক্ষিতে মামলার ২নং আসামি রোকেয়া বেগমকে তার স্বামীকে সহযোগিতা এবং তাকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করায় তাকে আটক করা হয়েছে। রোববার তাকে চাঁদপুর আদালতে প্রেরণ করেছি। মামলার ১নং আসামী পলাতক থাকায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে আমরা খুব সহসা তাকে আটক করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করছি।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আসিবুল আহসান চৌধুরীর সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ওই শিশুকন্যার মেডিকেল রিপোর্ট করা হয়েছে। তার মেডিকেল রিপোর্টে ধর্ষণ চেষ্টার আলামত পাওয়া গেছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।