মতলব উত্তরে আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সভা

এই আহবায়ক কমিটি জেলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক অনুমোদিত : মনজুর আহমেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
মতলব উত্তর উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক কমিটি ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সাধারণ সভা শনিবার সকালে উপজেলার বাগানবাড়ি বাজার অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক ও সাবেক জেলা কমান্ডার মিয়া মো. জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ।

উপজেলা আ’লীগের সদস্য সচিব ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম হাওলাদারের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আ’লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা অ্যাড. রুহুল আমিন সরকার।

বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য শামসুল হক চৌধুরী বাবুল, গাজী মুক্তার হোসেন, আহবায়ক কমিটির সদস্য ও ইউপি চেয়ারম্যান ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আজমল হোসেন চৌধুরী, আহবায়ক কমিটির সদস্য ষাটনল ইউপি চেয়ারম্যান ও ষাটনল ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি একেএম শরীফ উল্লাহ সরকার, আহবায়ক কমিটির সদস্য সুলতানাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান হাবীবা ইসলাম সিফাত, আহবায়ক কমিটির সদস্য জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আল-মাহমুদ টিটু মোল্লা, অ্যাড. সেলিম, আবুল কালাম আজাদ, আসাদুজ্জামান, বাগানবাড়ি ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা নান্নু মিয়া, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী ইলিয়াছ আলী, ইসলামাবাদ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আল-আমিন,কলাকান্দা ইউপি চেয়ারম্যান আঃ ছোবান সরকার সুভা, ষাটনল ইউনিয়ন আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হারুন-অর-রশিদ প্রমূখ। সভায় উপজেলা আ’লীগের সদস্য নবায়ন, নতুন সদস্য করনসহ দলের সাংগঠনিক বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী ও আ’লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা নিদেৃশনায় নির্বাচনী প্রস্তুতি এবং আসন্ন ইউপি নির্বাচন ও উপজেলার ইউনিয়ন আ’লীগকে শক্তিশালী করার লক্ষে প্রতিটি ওয়ার্ড পর্যায়ে সম্মেলনের কর্মসূচি গ্রহন করা হয়। এছাড়া দলের কার্যক্রম গতিশীল করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে চাঁদপুর জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ দলে সদস্য নবায়ন ও নতুন সদস্য প্রসঙ্গে বলেছেন, কোনো অনুপ্রবেশকারী বাংলাদেশ আ’লীগ মতলব উত্তর উপজেলা শাখায় স্থান পাবে না। যে ঘরে বা পরিবারে একাধিক দলের সদস্য থাকবে তাকে আ’লীগের সদস্য করা যাবে না। তারা দলের জন্য গুপ্তচর। দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা ও বিভেদ সৃষ্টি করার জন্য গুপ্তচর হিসেবে দলে ঢুকে দলের সাংগঠনিক কাঠামোকে ধবংস করবে। এ সুযোগ কোনো অবস্থাতে দেওয়া যাবেনা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরিষ্কার ভাষায় বলে দিয়েছে দল চলবে সাংগঠনিক গঠনতন্ত্র মোতাবেক। এখানে কারও উপদল বা ব্যক্তি লীগ তৈরি করার বা হস্তক্ষেপ করার সুযোগ নেই। আজকের এই আহবায়ক কমিটি কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক বিভাগীয় কমিটির নির্দেশনায় জেলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক অনুমোদিত বৈধ কমিটি। এই কমিটির বাইরে গিয়ে কোনো সভা করার সুযোগ নেই। তিনি দলের সাংগঠনিক ভিত্তি শক্তিশালী করার জন্য দলের প্রতিটি নেতা-কর্মীকে ঐক্য বজায় রাখতে সকলের প্রতি আহবান জানান।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে, সেই স্বাধীনতা রক্ষা করতে পারবে বঙ্গবন্ধু পরিবারই। বিগত দিনে বিএনপি জামাত সরকার গঠন করে চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের হাতে পতাকা দিয়ে ৩০ লক্ষ শহীদের সাথে উপহাস করেছে। এদেশের জনগণ সেই ভুল আর কখনো করবে না, তারা কখনোই আর ওই বিএনপি জামাত শিবিরকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে, দেশের স্বাধীনতাকে রক্ষা করতে হলে দেশ পরিচালনায় আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নেই।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।