কচুয়াতে কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা

সুজন পোদ্দার :
করোনা সংক্রমণের কারণে চলতি বোরো মৌসুমে ব্যাপকভাবে ধানকাটা শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় উপজেলার সহদেব পুর পশ্চিম ইউনিয়নের সাইরার বিলে অসহায় ও দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।

প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় সাংসদ ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর নির্দেশে এ কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন তারা। কচুয়া উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাচ্ছেল খানের নেতৃত্বে শনিবার সকাল ৮ থেকে ধান কাটা শুরু করে দুপর ১২টা পর্যন্ত এই কার্যক্রম পরিচালনা করে।
এ সময় অনেকের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আরিফ শাহ মজুমদার, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফ মজুমদার, পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান, ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব, রাসেল, রাসেল প্রধান, কাদলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি জহির প্রমুখ।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাচ্ছেল খান বলেন, আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপির নির্দেশ দিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রলীগকে কৃষকদের পাশে থাকার জন্য।এরই ধারাবাহিকতায় আমরা কৃষকদের ধান কেটে ঘরে তুলে দিচ্ছি। শনিবার সকালে আমাদের এমপি মহোদয় আমার সাথে টেলি কনফারেন্সে আমাদের নেতা কর্মীদের ধান কাটতে উৎসাহিত করে। তারপর সাইরার বিলে শ্রমিক সংকটে পাকা ধান কাটতে কৃষকদের অসুবিধার কথা জেনে আমরা সেখানে গিয়ে তাদের পাকা ধান কাটতে সহযোগিতা করি।

তিনি আরো বলেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ যে কোনো সঙ্কটে সব সময় সাধারণ মানুষের পাশে থাকে, ভবিষ্যতেও থাকবে। উপজেলার সব নেতাকর্মীকে কৃষকদের পাশে থাকার আহবান জানান ।

কৃষক তুলপাই পশ্চিম পাড়ার মো. ইয়াছিন বলেন, আমার ৫৪ শতক জমির ধান পেকেছে কিন্তু ধান কাটার শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না, এ নিয়ে খুব চিন্তিত ছিলাম। এমতাবস্থায় মোফাচ্ছেল খানের নেতৃত্বে নেতা-কর্মীরা আমার ধান কেটে দিয়েছে। এ ধান কেটে দেওয়ায় আমি খুবই উপকৃত হয়েছি। এজন্য মোফাচ্ছের খানকে ধন্যবাদ জানাই।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন