সংবাদপত্রবিহীন চাঁদপুর জেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
করোনাভাইরাসের প্রভাবে এমন অনেক অভাবনীয় ঘটনা ঘটছে যা আগে কখনো ঘটেনি। তেমনি একটি ঘটনা ‘সংবাদপত্রবিহীন চাঁদপুর জেলা’। করোনার প্রভাবে আজ শনিবার থেকে চাঁদপুর জেলায় জাতীয় ও স্থানীয় সকল ধরনের পত্রিকা বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে হকাররা। করোনার সংক্রমণ থেকে আত্মরক্ষা এবং সরকারি টানা ১০ দিনের ছুটিতে গ্রাহক কমে যাওয়ায় হকারদের এমন সিদ্ধান্ত। এর আগে এমনটি কখনো হয়নি। হকাররা পত্রিকা বিলি না করায় আজ ঢাকা থেকে প্রকাশিত কোনো জাতীয় দৈনিক পত্রিকা চাঁদপুর জেলায় আনেননি জেলার পত্রিকা এজেন্টরা। একই কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য পত্রিকা বন্ধ রেখেছেন চাঁদপুর জেলা শহর থেকে প্রকাশিত ১৫ দৈনিক পত্রিকার প্রকাশকগণ।
এ ব্যাপারে চাঁদপুর জেলা হকার সমিতির সভাপতি মোঃ হানিফ বলেন, টানা সরকারি ছুটির কারণে সরকারি-বেসরকারি অফিস, আদালত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, চেম্বারসহ বিভিন্ন ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। দৈনন্দিন ক্রেতাও নেই রাস্তায়। এতে আমাদের লোকসান হচ্ছিল প্রতিদিন। তাছাড়া করোনায় সংক্রমণের আশংকাও আছে। সব মিলিয়ে হকাররা আপাতত কয়েক দিন পত্রিকা বিক্রি/বিলি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
চাঁদপুর শহরের পাটোয়ারী নিউজপেপার এজেন্সীর পরিচালক জসিম মেহেদী বলেন, সরকারি ১০ দিনের সাধারণ ছুটি শুরুর পর থেকেই পত্রিকা বিক্রি কমে যায়। লোকসান মেনেও এজেন্সী চালিয়ে আসছিলাম। কিন্তু বিক্রি কমে যাওয়া ও করোনা থেকে আত্মরক্ষায় হকাররা পত্রিকা বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়ায় আমরাও বাধ্য হয়েছি এজেন্সীর কার্যক্রম বন্ধ রাখতে। খুব খারাপ লাগছে। আমাদের এজেন্সী প্রতিষ্ঠার পর এমন ঘটনা আগে কখনো ঘটেনি। আজ সকালে অনেক গ্রাহক পত্রিকা না পেয়ে ফোন দিয়েছেন। তবে আশা করছি, পরিস্থিতির উন্নতি হলে দ্রুত পাঠকের হাতে পত্রিকা পৌঁছে দিতে পারবো আমরা।
এ ব্যাপারে দৈনিক চাঁদপুর প্রবাহের প্রকাশক নিলুফা আক্তার বলেন, শত প্রতিকূলকতা মোকাবেলা করেই বছরের পর বছর ধরে আমরা নিয়মিত পত্রিকা প্রকাশ করে আসছি। করোনার মধ্যেও আমাদের প্রকাশনা অব্যাহত ছিল। কিন্তু হকাররা পত্রিকা বিক্রি বন্ধ করায় আমরা বাধ্য হলাম কিছুদিনের জন্য পত্রিকা প্রকাশ বন্ধ রাখতে। তবে আমাদের ওয়েবসাইট (www.chandpurprobaha.com) এখন প্রতি মুহূর্তে আপডেট করা হচ্ছে। পাঠকদের আমরা সব সময় সর্বশেষ খবর জানাতে বদ্ধপরিকর।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন