আশিকাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিল্লাল খানের উপর সন্ত্রাসী হামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর সদর উপজেলার ২নং আশিকাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ বিল্লাল খানের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় এলাকাবাসী ও দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তাদের প্রশ্ন- এ কেমন অমানবিক নিষ্ঠুরতা! নির্যাতন ও মারপিটের শিকার বিল্লাল খান এখন বাকরুদ্ধ।

জানা যায়, আশিকাটি ইউনিয়নের রালদিয়া গ্রামের আদর্শ মুসলিমপাড়ায় মসজিদে নামাজ আদায় করতে গিয়ে মসজিদের মুয়াজ্জিনের মাথার উপর সিলিং ফ্যান চালু থাকার কারণে মুয়াজ্জিনকে অপমানিত করা হয়। এর প্রতিবাদ করে সমাধানের লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে আসেন এলাকার সমাজ সচেতন বাসিন্দা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ বিল্লাল খান। কিন্তু এ সময়  বিল্লাল খানকে মারাত্মকভাবে শফিক কাজী ও কুদ্দুস কাজী গংদের অর্তকিত হামলায় জখম হয়ে এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি। প্রথমে চাঁদপুর সদর হাসপাতাল, এরপর চাঁদপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতাল হয়ে সর্বশেষ ঢাকার একটি হাসপাতালে জীবন-মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন বিল্লাল খান।

হামলার পরও হামলাকারীরা বিল্লাল খানের বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত কুরুচিপূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট মন্তব্য লিখে সোস্যাল মিডিয়া, ম্যাসেঞ্জারে ছড়িয়ে দিয়ে সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য মিথ্যা প্রচার অব্যাহত রেখেছে। এ ক্ষেত্রে অভিযোগের তীর কাজী পরিবার উপর। যার নিন্দা জানিয়েছেন এলাকাবাসী। তারা এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের হাতে সোপর্দ করার জোর দাবি জানিয়েছেন চাঁদপুরের পুলিশ সুপারের কাছে।

জানা যায়, ২০০৫ সালে উল্লেখিত মসজিদ নির্মাণ করা হয় কিন্তু মসজিদের জায়গা আজো মসজিদের নামে ওয়াকফ করে দেওয়া হয়নি। এ নিয়ে শফিক কাজী গংদের সাথে স্থানীয় মুসল্লীদের অনেক তর্ক-বির্তক হয় এবং এখনো হচ্ছে। অথচ এই মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করা হয়। ধর্মীয়ভাবে এমন মসজিদের জমি ওয়াকফ করা বাধ্যতামূলক।

গত ১৯ এপ্রিল চলতি দায়িত্বরত মসজিদের মুযাজ্জিন তার মাথার উপর পাখা চালিয়ে নামাজ পড়াতে পারবে না বলে দেয় সফিক কাজী গং। এ নিয়ে স্থানীয় মুসল্লী মরহুম আলী খানের ছোট ছেলে প্রতিবাদ করলে তাকে মসজিদের ভিতরে তাকে মারধর করে। এক পর্যায়ে খবর পেয়ে আশিকাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ বিল্লাল খান ছোট ভাইকে মারপিট থেকে রক্ষা করে নিয়ে যায়। এরপর সফিক কাজী ও তার ছেলেরা একত্রিত হয়ে আওয়ামী লীগ নেতা বিল্লাল খানসহ তার ভাই-ভাতিজার উপর অর্তকিত হামলা চালিয়ে মারাত্মক জখম করে। রক্তাক্ত অবস্থায় এলাকাবাসী বিল্লাল খানসহ তার ভাই-ভাতিজাদের চাঁদপুর সদর হসপিটালে নিয়ে আসে। বর্তমানে বিল্লাল খানের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে চাঁদপুর থেকে ঢাক নেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।