চাঁদপুরের কচুয়ায় কালীমন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর : ঘটনাস্থলে ডিসি এসপি

সুজন পোদ্দার :
চাঁদপুরের কচুয়া উত্তর ইউনিয়নের নাহারা গ্রামে সার্বজনীন কালী মন্দিরের প্রতিমা ভাংচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার গভীর রাতে এ ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে গতকাল মঙ্গলবার চাঁদপুর জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিস, চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) সুদীপ্ত রায়, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কচুয়া সার্কেল) মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ, কচুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপায়ন দাস শুভ, কচুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মহিউদ্দিন ও জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক তমাল ঘোষসহ স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকালে জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, আমরা এখানে এসে হিন্দু সম্প্রদায়ের বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় মেম্বার চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে কথা বলেছি। এতে আমাদের কাছে মনে হয়েছে এটা নিজেদের অর্ন্তদ্বন্দ্ব। যারা ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে চায় তারা এ কাজ করেছে। আমরা সকলের সহযোগিতা নিয়ে দুর্বৃত্তদের খুঁজে বের করে শান্তির সম্মুখীন করব।

জেলা পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ বলেন, অন্য সম্প্রদায়ের সাথে সমস্যা সৃষ্টির লক্ষ্যে এ ভাংচুরের ঘটনা ঘটানো হয়েছে। নিজেরা করেছে বা অন্যেরা করেছে- তারা ইসলাম ধর্ম বা সনাতন ধর্মের অনুসারী হতে পারে না । তাদের কোন ধর্ম নেই । যারা ঘটনা ঘটিয়েছে অচিরেই তাদের সন্ধান করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এ ঘটনা নিয়ে আর যাতে সমস্যা সৃষ্টি হতে না পারে সে জন্য আমরা সজাগ রয়েছি।

জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক তমাল ঘোষ জানান, যারা প্রতিমা ভাংচুর করেছে আমি সেই দুর্বৃত্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। প্রশাসনের নির্দেশে আসন্ন দুর্গা পূজা উদযাপনের নাহারা সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরের সনতোষ চন্দ্র সেনকে আহবায়ক ও মানিক মজুমদার সোহাগকে সদস্য সচিব করে ১৭ সদস্যবিশিষ্ট একটি পূজা উদযাপন কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া পুলিশ প্রশাসনের উদ্যোগে পূজা মন্ডপে নিরাপত্তায় পুলিশের টিম সার্বক্ষণিক কাজ করে যাবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।