চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে করোনার উপসর্গ নিয়ে আরো ৪জনের মৃত্যু

জহিরুল ইসলাম জয় :
হাজীগঞ্জে জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্ট (করোনার উপসর্গ) নিয়ে আরো ৪জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। রোববার রাত থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত এই ৪জনসহ মোট উপজেলায় এ যাবৎ কমপক্ষে ২২জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে ও উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন।

রোববার রাতে উপজেলার ৪নং কালচোঁ দ. ইউনিয়নের ভাজনাখাল এলাকার কাজী শাহাজান (৬০) চাঁদপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তির কিছু সময় পর মারা যান। সদর হাসপাতালেই তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। গ্রামের বাড়িতে বিশেষ ব্যবস্থায় তার দাফন হয়।

হাটিলা পশ্চিম ইউনিয়নের কাঁঠালী গ্রামের সোলায়মান পাটওয়ারী (৬৫) শ্বাসকষ্টে মারা যান রাতে। নমুনা সংগ্রহের পর সোমবার সকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে তার মৃতদেহ দাফন করা হয়েছে।

১০নং গন্ধব্যপুর ইউনিয়নের ডাটরা শিবপুর সর্দার বাড়ির মাওলানা এনায়েত উল্লাহ মাস্টার (৭২) সোমবার সকালে জ্বর সর্দি নিয়ে মারা যান। নমুনা সংগ্রহের পর সোমবার সকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে তার মৃতদেহ দাফন করা হয়েছে।

হাজীগঞ্জ পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আজাদ হোসেন মজুমদার জানান, সকাল ৭টায় পৌরসভার এনায়েতপুর গ্রামের বেপারী বাড়িতে ‍মৃত চান মিয়া খানের ছেলে ইসমাইল (৫৫) নিজ বাড়িতে জ্বর, সর্দি ও শ্বাস কষ্ট নিয়ে মৃত্যুবরণ করেন। নমুনা সংগ্রহের পর বাদ জোহর স্বাস্থ্যবিধি তাকে দাফন করা হয়েছে।

হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা সোয়েব আহম্মদ চিশতি বলেন, হাজীগঞ্জে ৩জনের মৃত্যুর খবর পেয়েছি। আরেকজনের চাঁদপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে মৃত্যু হয়। তার নমুনা সেখানে সংগ্রহ করা হবে। আমরা হাজীগঞ্জের ৩জনের নমুনা সংগ্রহ করেছি।

দাফনকারী দলের সদস্য শরীফুল হাছান বলেন, সোমবার সকালে কাঁঠালী গ্রামে আজ এক আল্লাহর বান্ধাকে শেষ বিদায় দিয়ে আসলাম। আমাদের আরো কয়েক ভাই রামপুরে বিদায় দিচ্ছেন আরেক আল্লাহর বান্দাকে। রোববার রাতে থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত ৪জনের মৃত্যুর খবর পেয়েছি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন