চাঁদপুরে করোনার উপসর্গে হাসাপাতালে মৃতের লাশ নিতে আসেনি স্বজনরা!

আবদুস সালাম আজাদ জুয়েল/শরীফুল ইসলাম :
করোনার উপসর্গ নিয়ে চাঁদপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া হাজীগঞ্জের নূরে আলমের (৪৫) মরদেহ নিতে আসেনি স্বজনরা।

মৃত্যুর ১৬ ঘন্টা পর মরদেহ উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে গেছেন দাফন কাজে সংশ্লিষ্ট ইসলামী আন্দোলন হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবী টিম।

বৃহস্পতিবার দুপুর পৌঁনে ২টার দিকে তার মরদেহ আইসোলেশন থেকে স্বেচ্ছাসেবী টিম নিয়ে যান। দীর্ঘ ১৬ ঘন্টা মরদেহ আইসোলেশনে পড়ে থাকলেও এগিয়ে আসেননি আত্মীয়-স্বজনরা। করোনা আক্রান্ত সন্দেহে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে।

মৃত নূরে আলম (নুরুল আমিন) হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার ২ নম্বর ওয়ার্ডের বলাখাল বাজার সংলগ্ন নেংটা বাড়ির বাসিন্দা। তার দুই ছেলে ও স্ত্রী রয়েছে। আপন এক ভাই ঢাকায় থাকেন।

নিহতের চাচাতো ভাই আব্দুল হান্নান জানান, নূরে আলমের মৃত্যু হয়েছে তিনি জানতেনই না। বৃহস্পতিবার সকালে মৃত্যুর সংবাদ জেনেছেন। এখন সকলের সাথে যোগাযোগ করে দাফনের ব্যবস্থা করবেন।

স্থানীয় বাসিন্দা বিল্লাল হোসেন জানান, নূরে আলম গত দু’বছর অসুস্থ ছিলেন। গত ৬ মাস তার অসুস্থতা আরো বেড়ে যায়। তার দু’টি কিডনি ডেমেজ ও ডায়াবেটিক ১৯ এর উপরে ছিল।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল (সদর) হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. সুজাউদ্দৌলা রুবেল জানান, বুধবার দিবাগত রাতে নূরে আলম জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে আসলে আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি দেয়া হয়। সেখানে তিনি রাত ১০টার দিকে মৃত্যুবরণ করেন।

সকালে তার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। মরদেহ দাফনের জন্য দুপুরে মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গিয়েছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই তার দাফন সম্পন্ন হবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন