চাঁদপুরে করোনার টিকা গ্রহণে ভিড় বেড়েছে

কবির হোসেন মিজি :
চাঁদপুরে করোনার টিকা গ্রহণে হঠাৎ করে ভিড় বেড়েছে টিকাদান কেন্দ্র ও অনলাইনে রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে। এ অবস্থায় টিকা সংকটের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে জনমনে। তবে সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আপাতত টিকা সংকটের আশঙ্কা নেই বলে জানান তিনি।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, চাঁদপুর জেলায় কোভিড-১৯ (করোনাভাইরাস) প্রতিরোধী টিকা (ভ্যাকসিন) গ্রহণের জন্য বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত সর্বমোট ৩০ হাজার ৮শ’ ৬জন নিবন্ধন করেছেন। এর মধ্যে ২১ হাজার ৩শ’ ১৬জন টিকা গ্রহণ করেছেন। রেজিস্ট্রেশন এখন পুরোদমে চলছে।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশের সাথে চাঁদপুর জেলায় করোনার টিকা প্রদানের কার্যক্রম শুরু হয়। জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ জেলায় প্রথম টিকা গ্রহণ করেন। প্রথম দিকে টিকা গ্রহণে অনাগ্রহ থাকলেও এখন ব্যাপক আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। বয়স কম (৪০ বছরের নিচে) থাকায় অনেকে রেজিস্ট্রেশন করতে পারছেন না। কেউ স্বশরীরে আবার কেউ অনলাইনের মাধ্যমে টিকা গ্রহনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেন। তবে এখন শুধুমাত্র অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) চাঁদপুর সরকারি জেনারেল (সদর) হাসপাতালের করোনা বিষয়ক বিশেষ টিকাদান কেন্দ্রে গিয়ে টিকা গ্রহীতাদের অনেক ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। অনেকেই অনেক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে টিকা গ্রহণ করতে দেখা যায়।

উপজেলাভিত্তিক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চাঁদপুর সদর উপজেলায় রেজিস্ট্রেশন করেছেন সর্বমোট ৯ হাজার ৭শ’ ৩৭জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ৬ হাজার ৮শ’ ৯০জন।  হাইমচরে রেজিস্ট্রেশনের মোট সংখ্যা ১ হাজার ৮শ’ ৬৮জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ১ হাজার ৪শ’ ৩১জন। ফরিদগঞ্জে রেজিস্ট্রেশনের সংখ্যা ৩ হাজার ১৭জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ১ হাজার ৯শ’ ৩২জন। হাজীগঞ্জে রেজিস্ট্রেশনের সংখ্যা ৪ হাজার ৯শ’ ৭২জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ৩ হাজার ৬শ’ ১০জন।

এছাড়া শাহরাস্তিতে রেজিস্ট্রেশনের সংখ্যা ২ হাজার ৬শ’ ৭৪জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ১ হাজার ৮শ’ ১০জন। কচুয়ায় রেজিস্ট্রেশনের সংখ্যা ৩ হাজার ৪শ’ ৭৬জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ১ হাজার ৯শ’ ৬৩জন। মতলব দক্ষিণে রেজিস্ট্রেশনের সংখ্যা ৩ হাজার ২৩জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ২ হাজার ২শ’ ৮০জন। মতলব উত্তরে রেজিস্ট্রেশনের সংখ্যা ২ হাজার ২৯জন। টিকা গ্রহণ করেছেন ১ হাজার ৪শ’জন। সব মিলিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত সর্বমোট ২১ হাজার ৩শ’ ১৬জন করোনার টিকা গ্রহণ করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. সাখাওয়াত উল্লাহ বুধবার রাতে চাঁদপুর প্রবাহকে জানান, শুরুতে রেজিস্ট্রেশনের হার অনেক কম থাকলেও এখন তা আশাব্যঞ্জক। ব্যাপক হারে রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে এখন। পরিস্থিতি মোকাবেলায় ৭২ হাজার ডোজ টিকা এখন আমরা একটানা দিয়ে দেব। আগের সিদ্ধান্ত ছিল ৩৬ হাজার ডোজ দিয়ে বাকী ৩৬ হাজার প্রথম ডোজ গ্রহণকারীদের জন্য মজুদ রাখা হবে। এখন আমরা আর মজুদ রাখবো না। পরবর্তী বরাদ্দ থেকে দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, ৭২ হাজার জনের রেজিস্ট্রেশন হয়ে গেলেও রেজিস্ট্রেশনও অব্যাহত থাকবে। তবে দ্বিতীয় দফায় কবে নাগাদ করোনার টিকা চাঁদপুরে আসবে তা বলতে পারেননি জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের এই শীর্ষ কর্মকর্তা। চাঁদপুরে এখন পর্যন্ত টিকা গ্রহণকারীদের মধ্যে তেমন কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়নি বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন