চাঁদপুরে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ : আরো ১জনের মৃত্যু : নতুন শনাক্ত ৯জন

রহিম বাদশা :
চাঁদপুরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরো ১জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুর ১টার দিকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তির কয়েক মিনিটের মধ্যেই তিনি মারা যান।

তার নাম অহিদুন্নেছা (৮২)। মতলব দক্ষিণের দিঘলদী এলাকার এই বৃদ্ধা জ্বর ও প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে আসেন। মৃত্যুর পর তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। রোববার প্রাপ্ত রিপোর্টে জানা যায়, তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন।

চাঁদপুর সদর হাসপাতালের করোনা বিষয়ক ফোকালপার্সন ডা. সুজাউদ্দৌলা রুবেল বলেন, চাঁদপুরে হঠাৎ করে করোনায় আক্রান্ত বেড়ে গেছে। অনেক দিন পর আবার মৃত্যুর ঘটনাও ঘটলো।

তিনি বলেন, খুব সম্ভবত চাঁদপুরে করোনার দ্বিতীয় ধাপ শুরু হয়ে গেছে। তবে এখনো মানুষ অসচেতন। এমনকি উপসর্গ থাকা সত্ত্বেও অনেকে নমুনা পরীক্ষা করাচ্ছেন না এবং চিকিৎসার আওতায় আসছেন না।

তিনি আরো বলেন, চাঁদপুরে এ যাবৎ করোনায় মৃত কয়েকজন বাদে বাকীরা শনাক্তের আগেই মারা গেছেন। অর্থাৎ তারা চিকিৎসার আওতায় আসেননি ব্যক্তিগত অসচেতনতা ও অবহেলার কারণে। এখন পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর ঘটনা খুব কম।

সর্বশেষ শনিবার মারা যাওয়া বৃদ্ধাও অসুস্থ অবস্থায় বাসায় ছিলেন। মুমূর্ষু অবস্থায় শেষ সময়ে তাকে সদর হাসপাতালে আনা হয়। ফলে তিনিও চিকিৎসার আওতায় আসেননি।

এদিকে চাঁদপুরে রোববার আরো ৯জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে চাঁদপুর সদর উপজেলার ৬জন, ফরিদগঞ্জের ১জন, মতলব দক্ষিণের ১জন ও শাহরাস্তির ১জন রয়েছেন। একই দিনে করোনা থেকে সুস্থ ঘোষণা করা হয়েছেন ৭জনকে। এর মধ্যে চাঁদপুর সদরের ৪জন, মতলব উত্তরের ২জন ও ফরিদগঞ্জের ১জন।

এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৪৮৩জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭৯জন। সুস্থ হয়েছেন ২৩২৯জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন আছেন ৭৫জন। সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, রোববার (১৫ নভেম্বর) চাঁদপুরস্থ ভাষাবীর এম এ ওয়াদুদ আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে মোট ৮৪টি রিপোর্ট আসে। এর মধ্যে করোনা পজেটিভ ৯টি। বাকী ৭৫টি রিপোর্ট করোনা নেগেটিভ। বর্তমানে আইসোলেশন ভর্তিকৃত রোগীর সংখ্যা ১৪জন।

চাঁদপুর জেলায় বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত ২৪৮৩জনের উপজেলাভিত্তিক পরিসংখ্যান হলো : চাঁদপুর সদরে ১০৩১জন, ফরিদগঞ্জে ২৮৩জন, মতলব দক্ষিণে ২৭১জন, শাহরাস্তিতে ২৩৬জন, হাজীগঞ্জে ২০৯জন, মতলব উত্তরে ২০০জন, হাইমচরে ১৬৭জন ও কচুয়ায় ৮৬জন।

করোনায় জেলায় মোট ৭৯জন মৃতের উপজেলাভিত্তিক পরিসংখ্যান হলো : চাঁদপুর সদরে ২২জন, হাজীগঞ্জে ১৭জন, ফরিদগঞ্জে ১২জন, মতলব উত্তরের ১০জন, শাহরাস্তিতে ৭জন, কচুয়ায় ৬জন, মতলব দক্ষিণে ৪জন ও হাইমচরে ১জন।

ডা. রুবেল আরো বলেন, চাঁদপুর সদর হাসপাতালে রোববার মোট ৩৮টি স্যাম্পল পরীক্ষা করা হয়েছে। তার মধ্যে ৯জন পজিটিভ। পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ২৩.৬%। এর আগের দিন ৭১টি স্যাম্পল পরীক্ষা করা হয়েছে। তার মধ্যে পজিটিভ ১২জনের। পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৬.৯%।

তিনি বলেন, দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনা। কিন্তু রাস্তায় বের হলে মনে হয় করোনা নামক কোন রোগ নেই। খুব কম সংখ্যক মানুষ মাস্ক পরিধান করে। এভাবে চলতে থাকলে সামনে পরিস্থিতি হবে ভয়াবহ। ভ্যাকসিন
না আসা পর্যন্ত মাস্ক’ই হচ্ছে ন্যাচারাল ভ্যাকসিন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন