চাঁদপুরে করোনায় মৃত হিন্দু ব্যক্তির লাশ নিয়ে শ্মশানে ইসলামী আন্দোলন

শাওন পাটওয়ারী
করোনাকালে সাম্য, ভ্রাতৃত্ব ও মানবিকতার অনন্য নজির স্থাপন করেছে ইসলামী আন্দোলন। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপিত হলো চাঁদপুরের মাটিতে।

চাঁদপুরে করোনার উপসর্গে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সনাতন ধর্মের এক ব্যক্তির মৃত্যুতে চাঁদপুর মহাশশ্মানে সবদাহ সম্পন্ন করলো ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ চাঁদপুর জেলা শাখার স্বেচ্ছাসেবক দল।

২ জুন মঙ্গলবার রাত ৮টায় এ সবদাহের কাজটি সম্পন্ন করা হয়। ।

জানায়ায়, চাঁদপুর জেলার হাইমচর উপজেলার উত্তর আলগী কমলাপুর গ্রামের দাস বাড়ির বীরেশ্বর দাসের ছেলে সমীর চন্দ্র দাস (৪২)
২ জুন দুপুর ১টায় চাঁদপুর সদর হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যায়।

তাকে ওই দিন সকাল ১০টায় ভর্তি করানো হয় চাঁদপুর ২৫০ শয্যার সরকারি জেনারেল হাসপাতালে। চিকিৎসাধীন অবস্হায় দুপুর ১টায় সমীর চন্দ্র দাস মারা যায়।

তার মেজ ভাই রবি চন্দ্র দাস জানান, ঈদের আগে থেকে সমীর চন্দ্র দাস অসুস্হ ছিল। সে আলগী বাজারে কাপড় চোপর ইস্ত্রির (আয়রন) কাজ করতো। সে ১ মেয়ে ও ২ ছেলের জনক।

ইসলামি আন্দোলন চাঁদপুর জেলা শাখার সেক্রেটারি ইয়াসিন রাসেদ সানী জানান, চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতাল থেকে আমাদের খবর দেয়া হলে আমরা হাসপাতালের আইসোলেসন ওয়ার্ড থেকে মৃত ব্যাক্তির মরদেহ তার ভাই রবি চন্দ্রের কথামতো চাঁদপুর মহাশশ্মানে নিয়ে আশি। শশ্মানের কাজে নিয়োজিত ব্যাক্তিদের সাথে নিয়ে আমরা এই প্রথম করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত সনাতন ধর্মের ব্যাক্তির সৎকাজ সম্পন্ন করলাম।

এ সময় উপস্হিত ছিলেন যুব আন্দোলন জেলা শাখার সভাপতি হেলাল আহমেদ, সেক্রেটারি মাও. মেহেদী হাসান, সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক টিমের সম্বনয়কারী আনোয়ার আল নোমান, ইমরান হোসাইন প্রমুখ। মোট ২৫টি মরদেহের মধ্যে এই একটি সনাতন ধর্মের সবদাহ কাজ করা হয়। বাকি ২৪টির দাফন করা হয়।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন