চাঁদপুরে নববধূর মরদেহ উদ্ধার : বর আটক

শাওন পাটওয়ারী :
চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নে শান্তনা খাতুন (১৬) নামের এক নববধূর রহস্যজনকভাবে মত্যুর খবর পাওয়া গেছে। বুধবার দুপুরে রাজরাজশ্বেরের ৬নং ওয়ার্ডের কুড়ালিকান্দি গ্রামে নববধূর বাপের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। এই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে শান্তনার স্বামী ফয়সাল আলীকে আটক করেছে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চাঁদপুর মডেল থানার ওসি নাসিম উদ্দিন।

মৃত নববধূ শান্তনা কাড়ালিকান্দি গ্রামের রহিম বাদশা হাওলাদারের মেয়ে। এই ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে শান্তনার বাবার নিজে বাদী হয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

শান্তনার বড় ভাই শাকিল জানায়, গত তিন মাস আগে পার্শ্ববর্তী গ্রামের ফয়সাল আলীর সাথে পারিবারিকভাবে শান্তনার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তার বোন তাদের বাড়িতেই থাকতো এবং বোন জামাই ফয়সাল নিয়মিত আসা যাওয়া করতো। তাদের মধ্যে কোনরূপ কলহ ছিল না। ঘটনার দিন বুধবার সকালে আমার বাবা-মা আমার ছোট বোন সান্তনা ওর তার স্বামীকে ঘরে রেখে ক্ষেতে কাজ করতে যায়।

তিনি আরো বলেন, বেলা ১২টার সময় আমার ছোট বোন সেলিনা স্কুল থেকে বাড়িতে ফিরে দেখে ঘরের আড়ার সাথে ওড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলছে আমার বোন শান্তনা। এই দৃশ্য দেখে সাথে সাথে তার ডাক-চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসে। ওই সময় সান্ত¡নার স্বামী বাড়িতে ছিল না। আমাদের ধারণা কেউ আমার বোনকে মেরে ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে রেখে দেয়। আমার বোনের হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত শেষে অপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।

চাঁদপুর মডেল থানার ওসি নাসিম উদ্দিন বলেন, বুধবার রাতে আমরা খবর পাই। এলাকাটি চরাঞ্চল হওয়ায় বৃহস্পতিবার সকালে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে তা ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এই ঘটনায় মৃতের বাবা রহিম বাদশা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে নববধূর স্বামী ফয়সালকে আটক করা হয়েছে। আমরা ঘটনাটি গুরুত্বের সাথে তদন্ত করে দেখছি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন