চাঁদপুরে বোরকা পেঁচিয়ে ও সিএনজি-মাইক্রোর সংঘর্ষে ৫জন হতাহত

জহিরুল ইসলাম জয়/সুজন পোদ্দার :
চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ ও কচুয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ২জন নিহত ও ৩জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে হাজীগঞ্জে মোটরসাইকেলে বোরকা পেঁচিয়ে সাথী আক্তার (৩০) নামে এক নারীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার সকালে উপজেলার গন্ধর্ব্যপুর উত্তর ইউনিয়নের তারালিয়া সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ওই নারী মালীগাঁও গ্রামের আলমগীর হোসেনের স্ত্রী। সে ওই গ্রামের পশ্চিম রাজ বাড়ির বাসিন্দা।

স্থানীয় বাসিন্দা জামাল ও তোফায়েল জানান, সকালে ওই গ্রামের পারভেজ নামে তার আত্মীয়ের সাথে মোটারসাইকেলের পিছনের সিটে বসে স্থানীয় ওয়ারুক বাজারে ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে মোটরসাইকেলে তার বোরখা পেঁছিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পয়ে পড়েন। এ সময় ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয় বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) ইব্রাহিম খলিল জানান, বিষয়টি অত্যন্ত মর্মান্তিক। তারপরও প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অন্যদেকে হাজীগঞ্জ-কচুয়া আঞ্চলিক সড়কে মাইক্রো-সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে ১জন নিহত ও ৩জন আহত হয়েছেন। সোমবার বিকেলে কচুয়া উপজেলার কালচোঁ মসজিদের সামনে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনারপরপরই গুরুতর আহত ৪জনকে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কতর্ব্যরত চিকিৎসক ডুমুরিয়া গ্রামের পশ্চিম শীল বাড়ির স্বপন শীলের পুত্র সঞ্জিত শীল (৩৫) কে মৃত ঘোষণা করেন।

আহতরা হচ্ছেন- উপজেলারআকানিয়া গ্রামের আব্দুল মমিনের স্ত্রী তুহিন বেগম (৩৬), ধড্ডা গ্রামের বজলুর রহমানের ছেলে শাহআলম (২৫) ও শ্রীরামপুর গ্রামের আব্দুল হালিমের ছেলে সিএনজি ড্রাইভার জহির (৫০)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাজীগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা কচুয়াগামীসিএনজি কালচোঁ মসজিদ এলাকা অতিক্রমকালে বিপরীত দিক থেকে আসা দ্রæতগামী মাইক্রোবাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে।এতে সিএনজিটি দুমড়ে-মুচড়ে পড়ে। দুঘটনার পরপরই মাইক্রো বাসটি দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করার মূহর্তে হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ মাইক্রোবাসটি আটক করে।

নিহত সঞ্জিত কালচোঁ থেকে তার নিজ বাড়ি ডুমুরিয়া আসতে মাত্র অল্প কয়েক মিনিট সময়ের প্রয়োজন ছিল। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ কেড়ে নিল।

নিহত সঞ্জিতডুমুরিয়া বাজারে স্টুডিও এবং কসমেটিক্স ব্যবসা পরিচালনা করতো।তার রয়েছে স্ত্রী ও দুই কন্যা।সঞ্জিতের অকাল মৃত্যুতেডুমুরিয়া এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে সঞ্জিতের স্ত্রী, কন্যাসহ নিকট আত্মীয় স্বজনরা হাসপাতালে ছুটে এসে কান্নায় ভেঙ্গে পরে। তাদের আহাজারিতে বাতাস ভারী হয়ে উঠে।

এ ব্যাপারে কচুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মহিউদ্দিন জানান, নিহত ও আহতদের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।