চাঁদপুরে শেষ হয়ে গেছে করোনার টিকা : দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় ১৪১২১জন

তালহা জুবায়ের :
চাঁদপুুর জেলায় ফুরিয়ে গেছে মহামারি করোনা ভাইরাসের টিকা। তাই স্থগিত রয়েছে টিকাদান কর্মসূচী। গত শনিবার জেলায় মজুদকৃত সকল টিকা শেষ হওয়ায় রোববার থেকে স্থগিত করা হয় টিকা প্রদান কার্যক্রম। সোমবার এই তথ্য নিশ্চিত করেন চাঁদপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা. শাখাওয়াত উল্লাহ।

টিকা ফুরিয়ে যাওয়ায় প্রথম ডোজের টিকা গ্রহণ করা ১৪ হাজার ১২১জন তাদের দ্বিতীয় ডোজের টিকা নির্ধারিত সময়ে নিতে পারছেন না। টিকা দিতে এসে না দিতে পেরে হতাশ হয়ে ফিরতে হচ্ছে আবেদনকারীদের। নির্ধারিত সময়ে টিকা গ্রহণ করতে না পারায় উৎকণ্ঠায় রয়েছে দ্বিতীয় ডোজের টিকা গ্রহণের অপেক্ষায় থাকা মানুষ। পুনরায় কবে থেকে ফের টিকা প্রদান শুরু হবে তারও নিশ্চিয়তা নিতে পারছেনা স্বাস্থ্য বিভাগ।

চাঁদপুর জেলা সিভিল সার্জন অফিসের দেওয়া তথ্যমতে, জেলায় প্রথম ডোজের টিকা গ্রহণ করেছেন ৬০ হাজার ৩৯০জন। যার মধ্যে পুরুষ ৩৭ হাজার ৭১৫জন এবং নারী রয়েছেন ২২ হাজার ৬৭৫জন। এদিকে দ্বিতীয় ডোজের টিকা গ্রহণ করেছে মোট ৪৬ হাজার ২৬৯জন। এর মধ্যে পুরুষরা টিকা গ্রহণ করেছেন ২৮ হাজার ৭৪৫জন এবং নারী রয়েছেন ১৭ হাজার ৫২৪জন।

দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিতে আসা বিষ্ণুদী আজিজিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষিকা খোজেদা আক্তার লাকী বলেন, আমি দ্বিতীয় ডোজের টিকা দিতে এসে জানতে পেরেছি টিকা ফুরিয়ে গেছে। কবে নাগাদ টিকা দিতে পারবো তার কোন নিশ্চয়তা নেই। কবে নাগাদ টিকা দেওয়া হবে তারও কোন নিশ্চয়তা নেই।

সিভিল সার্জন ডা. শাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, গত শনিবার জেলায় মজুদকৃত করোনা ভাইরাসের টিকা শেষ হয়ে যাওয়ায় রবিবার থেকে টিকা প্রদান কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে। এখনো পর্যন্ত প্রথম ডোজ গ্রহণকারী ১৪ হাজার ১২১জন দ্বিতীয় ডোজের টিকা গ্রহণ করা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। টিকা সর্বরাহ হলেই তাদেরকে দ্বিতীয় ডোজের টিকা প্রদান করা হবে।

নির্ধারিত সময়ে দ্বিতীয় ডোজের টিকা গ্রহণ করতে না পারলে তা কাজে আসবে কিনা প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রথম ডোজের টিকা নেওয়ার পরবর্তী ৪ মাস পর্যন্ত এর কার্যকারিতা থাকে। এরমধ্যে দ্বিতীয় ডোজের টিকা দিতে পারলে টিকার পূর্ণ কার্যকারিতা বজায়ে থাকবে। তবে চার মাসের অধিক হলে আর কোন কার্যকারিতা থাকবে না। তখন নতুন করে আবারো দুই ডোজ টিকা নেওয়া লাগবে।

তিনি বলেন, জাতীয় ভাবেই টিকার সংকট রয়েছে। তাই কবে নাগাদ আমরা টিকা পাবো এখনই নিশ্চিত করে তা বলতে পারছি না। আমরা আশা করছি যত দ্রুত সম্ভব টিকা বরাদ্ধ পেলে প্রথম ডোজের টিকা নেওয়া আবেদনকারীদের দ্বিতীয় ডোজের টিকা প্রদান করতে পারবো। তবে বর্তমানে জেলায় নতুন করে করোনার টিকা গ্রহণের জন্য কারো আবেদনের সুযোগ নেই বলে জানান তিনি।

সিভিল সার্জন অফিসের দেওয়া তথ্য মতে, চাঁদপুরে এ পর্যন্ত ৪ হাজার ৬৭৮জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে চাঁদপুর সদরে ২ হাজার ১৬৯জন, হাইমচরে ২৩৭জন, মতলব উত্তরে ২৯০জন, মতলব দক্ষিণে ৪১৮জন, ফরিদগঞ্জে ৫১৩জন, হাজীগঞ্জে ৪৬৮জন, কচুয়ায় ১৬৯জন এবং শাহরাস্তিতে ৪১৪জন আক্রান্ত হয়। এখনও পর্যন্ত জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ১২২জন। বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২২০জন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন