মোহনপুর পর্যটন কেন্দ্রে নদীতে ডুবে শিক্ষার্থীর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার মোহনপুর পর্যটন কেন্দ্রে পিকনিকে এসে শনির আখড়া এলাকার নাভারন স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী টুটুল হোসেন নয়ন (১৬) নামে এক স্কুল শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার বিকেলে মোহনপুর পর্যটন কেন্দ্রের মেঘনা নদীতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জানা যায়, সে তিন সহপাঠীদের সাথে নদীতে গোসল করতে নামলে অন্য দুই সহপাঠী নদীতে ডুব দিয়ে উঠতে পারলেও টুটুল হোসেন নয়ন আর তীরে উঠতে পারেনি। সে পানিতে ডুবে মারা যায়।

নবারুন স্কুল এন্ড কলেজের স্কুলের সহকারী শিক্ষক খাদিজা আক্তার ময়না জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে তারা তাদের স্কুলের মোট ১৪০জন শিক্ষার্থী নিয়ে তিশা বাসযোগে মতলব উত্তরের মোহনপুরের পর্যটন কেন্দ্রে পিকনিকে আসেন।

বিকেল ৩টায় নিহত টুটুল হোসেন নয়ন (১৬)সহ আরো দু’জন শিক্ষার্থী পর্যটনের মেঘনা নদীতে গোসল করতে নামেন। সাথের দু’জন উঠতে পারলেও টুটুল আর ফিরে আসেনি। পরে প্রায় তিন ঘন্টা যাবত খুঁজে না পেয়ে নদীতে অনেক খোঁজাখুজি করে মোহনপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি ও চাঁদপুর ডুবুরীকে খবর দেয়া হয়।

পরে সন্ধ্যার সময় ডুবরি দল মোহনপুর পর্যটন কেন্দ্রের মেঘনা নদী থেকে উদ্ধার করে রাত ৭টার সময় মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মোহাম্মদ হাসিবুল ইসলাম তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জানা যায়, নবারুন স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী টুটুল হোসেন নয়ন ঢাকা কদমতলী মদিনাবাগ এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে।

জানা যায়, তার জন্মস্থান কুমিল্লা জেলার মেঘনা উপজেলার গুলপুর এলাকায়। বর্তমানে সে কদমতলী থানার মদিনাবাগ এলাকার আঃ হালিম মজুমদারের বাসায় ভাড়া থাকেন। তার পিতা আব্দুল মান্নান তেজগাঁও থানায় কনস্টেবল পদে চাকরি করেন। ছেলেটির বাবা একজন পুলিশ কর্মকর্তা। মাতা রিনা বেগম, সে বাবা-মায়ের একমাত্র ছেলে। তারা শিক্ষা সফরে এসেছিল।

সহপাঠী শাহরিয়ার নাজিম মুন্না বলেন, সে আমার প্রিয় বন্ধু ছিল। তার এভাবে মৃত্যু হবে তা মানতে বড় কষ্ট হচ্ছে। পানিতে ডুবে নিহত টুটুল হোসেনের নয়নের বাবা আনোয়ার হোসেন জানান তাকে ছোট্ট শিশু অবস্থায় তার মাকে আমি বিয়ে করি। তারপর থেকে আমি তাকে অনেক আদর করে লালন পালন করি। আমার বাসারায়েরবাগ কদমতলি মদিনাবাগ এলাকায় তার বাসা। সে নাভারুন স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণির ছাত্র।

বৃহস্পতিবার সে তার স্কুলের সাথে মতলবের মোহনপুর পর্যটনে পিকনিকে যায়। সে সাঁতার জানতো না। শুনেছি তিন বন্ধুর সাথে নদীতে গোসল করতে নামে। এরপর সে উঠতে পারেনি। মোহনপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আমাকে তার মৃত্যুর বিষয়টি জানিয়েছে। রাত ২টার সময় মোহনপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি থেকে আমি লাশ গ্রহণ করি। এখন তাকে তার মায়ের বাপের বাড়ি অর্থার তার নানার বাড়ি মেঘনা থানাধীন গোবিন্দপুর কবরস্থানে। এ ব্যাপারে মতলবের মোহনপুর নৌ-পলিশ ফাঁড়ি থানায় একটি অপমৃত্যু সংক্রান্ত ডায়েরি করা হয়েছে।

নাভারন স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. আজিজুল হক বলেন, আমরা এসেছিলাম আনন্দ করার জন্য, এই ঘটনায় আমরা খুবই মর্মাহত।

মতলব উত্তর উপজেলার মোহনপুর নৌ-পলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ একেএম কাউছার বলেন, মোহনপুরের পর্যটনে পিকনিকে এসে সহপাঠী তিন বন্ধুদের সাথে বিকেল ৩টার সময় নদীতে গোসল করতে নেমে তার খোঁজ পাচ্ছিল না। সে সাঁতার জানতো না। বিষয়টি আমাদেরকে জানালে আমরা নৌ-পুলিশ ও চাঁদপুর ডুবরি দল উদ্ধার অভিযান চালিয়ে সন্ধ্যার সময় তাকে উদ্ধার করি। রাত প্রায় ২টার সময় তার বাবা-মা আসলে তাদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়।

এ বিষয়ে নিহত নয়নের বাবা আনোয়ার নৌ-পুলিশ ফাঁড়িতে পানিতে ডুবে মারা গেছে এ সংক্রান্ত একটি অপমৃত্যু সংক্রান্ত জিডি করেছেন।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।