প্রবাসীর দিক থেকে সারাদেশের মধ্যে চাঁদপুর জেলা চতুর্থ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
‘মুজিববর্ষের আহবান দক্ষ হয়ে বিদেশ যান’ এ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে চাঁদপুরে ‘নিরাপদ অভিবাসন ও দক্ষতা উন্নয়ন’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে চাঁদপুরস্থ ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজির (আইএমটি) সম্মেলনকক্ষে এই সেসিনার অনুষ্ঠিত হয়।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন চাঁদপুর আইএমটি’র সিনিয়র ইন্সট্রাক্টর প্রকৌশলী আল আমিন পাভেল। অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহনাজ, প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা, মেরিন ইনস্টিটিউটের ইন্সট্রাক্টর এএমএম মুহাইমিন।

প্রকৌশলী মো. রেজওয়ান উল ইসলামের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন বাগাদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বিল্লাল হোসেন পাটওয়ারী, রামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আল মামুন পাটওয়ারী, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি এএইচএম আহসান উল্লাহ, চাঁদপুর টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আল ইমরান শোভন প্রমুখ।

সেমিনারে জানানো হয়, সর্বোচ্চ প্রবাসীর দিক থেকে সারাদেশের মধ্যে চাঁদপুর জেলার অবস্থান চতুর্থ। প্রথম অবস্থানে কুমিল্লা, দ্বিতীয় স্তানে ব্রাহ্মনবাড়িয়া ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে চট্টগ্রাম। তবে অধিক প্রবাসী অধ্যুষিত জেলা হয়েও চাঁদপুরের মানুষের মধ্যে বিদেশ গমন বিষয়ে সচেতনতা কম। এখানে দালাল চক্রের মাধ্যমে বিদেশ যেয়ে অনেকেই ঠকছে। সৌদি আরবে শ্রমিক যাওয়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা নেওয়ার কথা থাকলেও অনেকে ৫-৭ লাখ টাকা দিয়েও সেখানে যাচ্ছে। তাছাড়া অদক্ষ লোক বিদেশ কাজের জন্য যেয়ে তেমন সুবিধা করতে পারছেন না। এ বিষয়ে সবাইকে সচেতন হতে হবে।

বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে। একটা সময় বাংলাদেশ শুধু কৃষি নির্ভরশীল দেশ ছিলো কিন্তু এখন প্রতিটি সেক্টর নিয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। রেমিট্যান্সও আমাদের দেশের অন্যতম একটি আয়। অর্থনৈতিক মুক্তির একটা উপায়। বাংলাদেশ সরকার প্রতিনিয়তই চেষ্টা করছে যেন এ সেক্টরটি আরো উন্নত হোক। বক্তারা আরো বলেন, করোনাকালেও বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ ভালো রেমিট্যান্স আয় করেছে। তার অন্যতম কারণ হলো প্রবাসীদের জন্য ২% করে যোগ করা। যার কারণে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠাতে আরো বেশি আগ্রহী হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন